image

আজ, রবিবার, ১৮ নভেম্বর ২০১৮ ইং

আওয়ামী লীগের দিন শেষ : ফখরুল

ঢাকা ব্যুরো    |    ১৩:৫৩, সেপ্টেম্বর ১০, ২০১৮

image

ঢাকায় বিএনপির মানবন্ধনে উপস্থিতির একাংশ

আওয়ামী লীগ সরকারের দিন শেষ হয়ে এসেছে দাবি করে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, ক্ষমতা থেকে তাদেরকে সরে যেতে হবে। 

সোমবার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তি ও সুচিকিৎসার দাবিতে আয়োজিত মানববন্ধনে তিনি এসব কথা বলেন। 

মির্জা ফখরুল বলেন,  দেশনেত্রী বেগম খালেদা প্রায় ৮ মাস ধরে কারাগারে বন্দী৷ তাকে অন্যায়ভাবে কারাবন্দী রেখেছে সরকার।  আমরা কোনো করুনা চাই না। আইনিভাবে তাকে মুক্ত করতে চাই। কিন্ত এ সরকার তার মুক্তির পথ বন্ধ করছে।  বেগম খালেদা জিয়াকে অবশ্যই মুক্তি দিতে হবে। মুক্তি তার অধিকার৷ 

তিনি বলেন, আজকে প্রতি পদে পদে স্বাধীনতা হরণ করছে। একটার পর একটা কৌশল নিচ্ছে সরকার। এখন সরকার নতুন করে সারা দেশে গ্রেপ্তার শুরু করেছে। প্রায় ১ লাখের উপরে মানুষকে আসামী করেছে৷ এভাবে গ্রেপ্তার করে, অত্যাচার,  নির্যাতন করে ক্ষমতায় টিকে থাকা যাবে না৷ 

বিএনপি মহাসচিব বলেন,  এই ভয়াবহ নরককে সরাতে হবে।  এই ভয়াবহ নরক সরকার  থেকে মুক্তি পেতে হবে।   সমগ্র জাতিকে আহ্বান জানাচ্ছি, আসুন ঐক্যবদ্ধ হয়ে এই পাথর সরিয়ে দিই৷  একটি অবাধ সুষ্ঠু নির্বাচনের মধ্যদিয়ে একটি জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠা করি দেশে।  

তিনি  বলেন, তফসিল ঘোষণার আগে সংসদ ভেঙে দিতে হবে, সরকারকে পদত্যাগ করতে হবে, নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠন করতে হবে, সেনা বাহিনী মোতায়েন করতে হবে। খালেদা জিয়াকে কারাগারে রেখে কোনো অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন হবে না। তাকে অবশ্যই মুক্তি দিতে হবে।  

বিএনপির এই নীতিনির্ধারক বলেন,  সরকসরকে সরে যেতে হবে৷ তাদের দিন শেষ হয়ে এসেছে৷ আওয়ামী লীগ দেউলিয়া হয়ে গেছে৷

সরকার খালেদা জিয়া চিকিৎসা নিয়ে সংবিধানের বরখেলাপ করছে দাবি করে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আব্দুল মঈন খান বলেন, কারাবন্দি বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়াকে জেলের ভিতরে ক্রমান্বয়ে নিঃশেষ করার ষড়যন্ত্র সম্পূর্ণ সংবিধানের বরখেলাপ।

তিনি বলেন, বিএনপির চেয়ারপার্সন শুধু  এদেশের নাগরিক নন,তিনি এদেশের তিন তিনবারের প্রধানমন্ত্রী, অথচ দুঃক্ষের বিষয় তাকে জেলের ভিতর ক্রমান্বয়ে নিঃশেষ করার ব্যবস্থা করা হয়েছে যা সম্পূর্ণ সংবিধানের বরখেলাপ।

বিএনপির এইনীতিনির্ধারক  বলেন, বাংলাদেশের সংবিধানে ৫টি মৌলিক অধিকার সৃষ্টির দায়িত্ব হচ্ছে সরকারের। খাদ্য, অন্য,বস্থ,শিক্ষা, চিকিৎসা, আবাসনের অধিকার প্রতিটি নাগরিকের উপর প্রযোজ্য কিন্তু সরকার তা না করে ২০১৪সালের মতো নির্বাচনের প্রহশন করছে।

তিনি বলেন, খালেদা জিয়ার মুক্তি ও সুচিকিৎসা নিয়ে সরকার ছলচাতুরী এবং ধোঁকাবাজি নির্বাচন করতে দেব না। আমরা বেগম জিয়াকে মুক্ত করেই গণতন্ত্রের লড়ায়ে নামবো। এবং ৪র্থ বারের মতো প্রধানমন্ত্রী করবো।

মানববন্ধনে আরও উপস্থিত ছিলেন- বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ড. আব্দুল মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান, ভাইস-চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল নোমান, মো. শাজাহান, মেজর জেনারেল (অব.) রুহুল আলম চৌধুরী, শামসুজ্জামান দুদু, ডা. এ জেড এম জাহিদ হোসেন, শওকত মাহমুদ, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আমান উল্লাহ আমান, জয়নুল আবদিন ফারুক, আব্দুস সালাম, হাবিবুর রহমান হাবিব, আতাউর রহমান ঢালী উপস্থিত হয়েছেন।

এছাড়াও যুগ্ম-মহাসচিব অ্যাডভোকেট সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, খায়রুল কবির খোকন, তথ্য বিষয়ক সম্পাদক আজিজুল বারী হেলাল, স্বেচ্ছাসেবক বিষয়ক সম্পাদক মীর সরাফৎ আলী সফু, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সালাম আজাদ, বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য নাজিম উদ্দীন আলম, আবু নাসের মোহাম্মদ রহমতুল্লাহ,  ইঞ্জিনিয়ার্স টিএস আয়্যুব, স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কাদের ভূইয়া জুয়েল, ছাত্রদলের সভাপতি রাজিব আহসান, শ্রমিক দলের সাধারণ সম্পাদক নুরুল ইসলাম খান নাসিম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

তফসিল আগে দাবি না মানলে সরকারের পতনের ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন : মোশাররফ 

 বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেছেন,'
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার আগেই  আমাদের সকল দাবি পূরণ করতে হবে। '

তিনি বলেন, 'অন্যথায় এদেশের জনগণ একটি জাতীয় ঐক্য সৃষ্টি করে এই সরকারের পতনের লক্ষ্যে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন করবে।

রবিবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে এসব কথা বলেন তিনি।

বিএনপি চেয়ারপারসনের মুক্তির দাবিতে দলটির পক্ষ থেকে এই কর্মসূচির আয়োজন করা হয়।

বেলা ১১টায় শুরু হওয়া মানববন্ধন চলে ১২টা পর্যন্ত।

মোশাররফ বলেন, ' সংসদ ভেঙ্গে দিতে হবে। সরকারকে পদত্যাগ করতে হবে, এই নির্বাচন কমিশন সংস্কার করে আগামী নির্বাচন হতে হবে সেনাবাহিনীর  উপস্থিতিতে।

তিনি বলেন, 'আজকে সারা দেশের মানুষ যেমন এই দাবিতে একমত, সারা বিশ্বও বাংলাদেশে অংশগ্রহনমূলক নির্বাচন চায়। বেগম খালেদা জিয়াকে ছাড়া, বিএনপিকে ছাড়া এদেশে কোনো অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন হতে পারে না। হতে দেয়া হবে না। তাই আমরা আজকে পরিষ্কার ভাবে বলতে চাই বেগম খালেদা জিয়াকে নি:শর্তভাবে মুক্তি দিতে হবে।

মোশাররফ বলেন, 'তিনি (খালেদা জিয়া) গুরুতর অসুস্থ সরকার তার উপযুক্ত চিকিৎসা দিচ্ছে না। বেগম খালেদা জিয়া মুক্ত হলে তিনি তার উপযুক্ত চিকৎসা নিতে পারবেন এবং সুস্থ হয়ে আগামী গণতন্ত্র পূণরুদ্ধারের আন্দোলনে নেতৃত্ব দেবেন।



image
image

রিলেটেড নিউজ

Los Angeles

১৭:৫৫, নভেম্বর ৪, ২০১৮

বিএনপি নেতা তরিকুল ইসলামের ইন্তেকাল


Los Angeles

১৬:৫৫, নভেম্বর ১, ২০১৮

খালেদা-তারেক দলীয় পদও হারাচ্ছেন !


Los Angeles

১৩:৩২, অক্টোবর ৩১, ২০১৮

নির্বাচন, সংলাপ, আন্দোলন,  এক সঙ্গেই  চলবেই : মওদুদ


Los Angeles

২০:৩৩, অক্টোবর ২৪, ২০১৮

ঐক্যের বিজয় এবং খালেদার মুক্তি দুটোই অবধারিত : ড.কামাল


Los Angeles

০১:০৩, অক্টোবর ১৬, ২০১৮

ডাঃ জারুল্লাহর বিরুদ্ধে রাষ্ট্র দ্রোহ মামলা দায়ের


Los Angeles

২০:৫১, সেপ্টেম্বর ২৭, ২০১৮

২০ দলীয় জোটের বৈঠকে উপস্থিত আছেন যারা


image
image