আজ, সোমবার, ২০ জানুয়ারী ২০২০ ইং

টেকনাফে নিহত রোহিঙ্গা ডাকাত নুর মোহাম্মদ বাংলাদেশের পাসপোর্টধারী

কক্সবাজার সংবাদদাতা    |    ১৪:৪০, সেপ্টেম্বর ১, ২০১৯

image

কক্সবাজারের টেকনাফে পুলিশের হাতে আটক রোহিঙ্গা উগ্রপন্থী সংগঠনের স্বঘোষিত নেতা, রোহিঙ্গা ডাকাত ও ইয়াবা গডফাদার নুর মোহাম্মদ কথিত বন্দুক যুদ্ধে নিহত হয়েছেন।

পুলিশের দাবী,এতে ওসি তদন্তসহ ৩ পুলিশ আহত ও ঘটনাস্থল হতে বিপূল পরিমাণ অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছে। ১ সেপ্টেম্বর ভোর পৌনে ৬টার দিকে বন্দুক যুদ্ধের এ ঘটনা ঘটেছে। গত ৩১ আগস্ট দুপুরে ডাকাত নুর মোহাম্মদ ও আমান উল্লাহকে আটক করে পুলিশ। 

পুলিশ সুত্র জানায়, ১ সেপ্টেম্বর রবিবার ভোর পৌনে ৬টারদিকে টেকনাফ মডেল থানার ওসি (তদন্ত) এবিএমএস দোহার নেতৃত্বে বিশেষ পুলিশের দল ধৃত নুর মোহাম্মদ (৩৪) কে নিয়ে হ্নীলা জাদিমোরা ২৭নং ক্যাম্পের পাহাড়ী জনপদের বাড়িতে অবৈধ অস্ত্র ভান্ডার উদ্ধার অভিযানে যান। এসময় রোহিঙ্গা উগ্রপন্থী সংগঠন এবং মাদক কারবারী সিন্ডিকেটের সশস্ত্র সদস্যরা এলোপাতাড়ি গুলিবর্ষণ করে নুর মোহাম্মদকে ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করে। এতে থানা পুলিশের ওসি (তদন্ত) এবিএমএস দোহা (৩৬), কনস্টেবল আশেদুল (২১) ও অন্তর চৌধুরী (২১) আহত হয়। এরপর পুলিশও আত্মরক্ষার্থে আধ ঘন্টাব্যাপী ৪০/৫০ রাউন্ড পাল্টা গুলিবর্ষণ করার পর হামলাকারীরা গভীর পাহাড়ের দিকে চলে যায়। কিছুক্ষণ পর ঘটনাস্থল তল­াশী করে ৪টি এলজি, ১টি থ্রি কোয়াটার, ১৮ রাউন্ড গুলি, ২০ রাউন্ড খালি খোসাসহ গুলিবিদ্ধ নুর মোহাম্মদকে উদ্ধার করে টেকনাফ উপজেলা সদর হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে আহত পুলিশ সদস্যদের চিকিৎসা দেয়া হলেও কর্তব্যরত চিকিৎসক নুর মোহাম্মদকে মৃত ঘোষণা করেন। লাশ ময়না তদন্তের জন্য জেলা সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।

টেকনাফ মডেল থানার ওসি প্রদীপ কুমার দাশ জানান, মোস্ট ওয়ানন্টেড একাধিক মামলার পলাতক আসামী ও যুবলীগ নেতা ওমর হত্যা মামলার আসামী নুর মোহাম্মদকে নিয়ে আস্তানায় অভিযানে গেলে এ ঘটনা ঘটে। এব্যাপারে মামলার প্রক্রিয়া চলছে।

প্রসংগত, গত ২২ আগস্ট রোহিঙ্গা ডাকাত সর্দার নুর মোহাম্মদ বাহিনীর প্রধান নুর মোহাম্মদের কিশোরী কণ্যার কর্ণ ছেদন অনুষ্ঠানে উপহার সামগ্রী হিসাবে পাওয়া গেছে-সোয়া কোটি নগদ টাকা, প্রায় ৯৬ ভরি স্বর্ণালংকার, প্রায় ২৫ লক্ষ টাকার ইলেকট্রনিক্স ও অন্যান্য মূল্যবান উপহার সামগ্রী। এদিনই তুচ্ছ বিষয় নিয়ে যুবলীগ নেতা ওমর ফারুককে গুলি করে হত্যা করা হয়। এই মামলার প্রধান আসামী ছিল নিহত নুর মোহাম্মদ। নুর মোহাম্মদ ১৯৯১ সালে মিয়ানমার থেকে টেকনাফে আসে। চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের পাশলাইশ থানার আমিন জোট মিলের ষোলশহর হিলভিউ বার্মা কলোনীতে ভোটার তালিকাভুক্ত হন। সে বাংলাদেশী স্মার্ট কার্ডও পান। সে ধীরে ধীরে তার সশস্ত্র বিশাল কুখ্যাত বাহিনী গড়ে তুলে। সে বাহিনী নিয়ে টেকনাফের গহীন অরণ্যে অবস্থান করে থাকে। সেখান থেকে দীর্ঘ প্রায় ২ যুগ ধরে বিভিন্ন অপরাধকর্ম চালিয়ে আসছে। নুর মোহাম্মদ ও তার বাহিনীর বিরুদ্ধে অপহরণ, ডাকাতি, অস্ত্র সহ বিভিন্ন ধরনের একাধিক মামলা রয়েছে। দীর্ঘদিন ধরে সে পলাতক আছে। ভয়ংকর নুর মোহাম্মদ বাহিনী টেকনাফের পশুর হাঠ, মাদক ব্যবসার কিছু অংশ, মানবপাচার সহ টেকনাফের অপরাধ জগতের ডন হিসাবে পরিচিত।



image
image

রিলেটেড নিউজ

Los Angeles

২২:১৫, জানুয়ারী ১৫, ২০২০

চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কে ছয় লেনের ৪ সেতুর দ্রুত কাজ চলছে


Los Angeles

১০:৫৩, জানুয়ারী ১৫, ২০২০

চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কে ২০ পয়েন্টে বসছে গতিরোধক


Los Angeles

১২:০৮, জানুয়ারী ৮, ২০২০

কুতুবদিয়ায় জাগরণী সংঘ’র শীতবস্ত্র বিতরণ


Los Angeles

১৬:০৭, জানুয়ারী ৫, ২০২০

বাইশারীর শিক্ষার্থীদের কম্বল দিলেন বিজিবি’র রামু সেক্টর হেড় কোয়ার্টার


Los Angeles

০০:২০, জানুয়ারী ৪, ২০২০

কুতুবদিয়ায় এতিমদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ


Los Angeles

০০:৪৫, জানুয়ারী ২, ২০২০

কুতুবদিয়া উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে সেরা শিক্ষকদের সংবর্ধনা


Los Angeles

০০:৩১, জানুয়ারী ২, ২০২০

টেকনাফে বিজিবি’র শীতবস্ত্র বিতরণ


Los Angeles

২৩:২৬, ডিসেম্বর ২৭, ২০১৯

কুতুবদিয়ায় ক্রীড়া সামগ্রী বিতরণ করলেন জালানি সচিব


Los Angeles

০১:২৮, ডিসেম্বর ২৬, ২০১৯

কুতুবদিয়ায় গণসচেতনতামূলক সমাবেশ অনুষ্ঠিত


image
image
image

আরও পড়ুন

Los Angeles

২১:১৪, জানুয়ারী ১৮, ২০২০

দোহাজারীতে দিয়াকুল আশ্রয়ণ প্রকল্প পরিদর্শন করেন স্বরাষ্ট্র উপ-সচিব সনজিদা শরমিন


Los Angeles

১৮:৪২, জানুয়ারী ১৮, ২০২০

সাংবাদিক আবাদুজ্জামান সন্ত্রাসী হামলার শিকার