image

রাউজানে হলদিয়ায় মানহীন ইটে সড়ক : জনমনে অসন্তোষ

image

রাউজানের হলদিয়া ইউনিয়নে নিম্নমানের ইট দিয়ে কাজ করার অভিযোগে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও উপজেলা প্রকৌশলী সড়কটি পরিদর্শন করেছেন। পরিদর্শন কালে এই দুই কর্মকর্তা স্থানীয়দের অভিযোগের সত্যতা পেয়ে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান।

জানা যায়, ১ কোটি ২ লাখ টাকা ব্যয়ে শহীদ জাফর সড়ক ভায়া বৃন্দাবন সড়কের ব্রীক সলিং এর কাজ পায় ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান পুর্বালী টের্ডাস। হলদিয়া ইউনিয়নের দুর্গম পাহাড়ী এলাকার এই সড়ক উন্নয়ন কাজে ১নম্বর ইটা ব্যবহারের পরিবর্তে সড়ক কাজে ব্যবহার করা হচ্ছে নিম্নমানের ইট।

এর আগে নিম্নমানের ইট ব্যবহার করার একটি ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়। ভাইরাল হওয়া ছবি ও স্থানীয়দের অভিযোগের ভিত্তিতে সড়কটি পরির্দশন করেন রাউজান উপজেলা নির্বাহী অফিসার জোনায়েদ কবির সোহাগ, রাউজান উপজেলা প্রকৌশলী আবুল কালাম ও হলদিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা শফিকুল ইসলাম।

রাউজানের হলদিয়া ইউনিয়নের শহীদ জাফর সড়ক থেকে বৃকভানুপুর হয়ে বৃন্দাবন বাজার পর্যন্ত সড়কটি এলাকার খুবই গুরুত্বপূর্ণ। রাউজানের সাংসদ এবিএম ফজলে করিম চৌধুরী ব্রীক সলিং এর জন্য স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় থেকে অর্থ বরাদ্দ করেন। ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান ১নং ইট দিয়ে ব্রীক সলিং করার পরিবর্তে নিম্নমানের ইট দিয়ে সড়কে ব্রীক সলিং কাজ করায় স্থানীয়দের মাঝে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়।

সরেজমিনে পরিদর্শন কালে দেখা গেছে, সড়কের ব্রীক সলিং কাজে নিম্নমানের ইট ব্যবহার করার দৃশ্য। টেন্ডার শিডিউলে ১নং ইট ব্যবহারের নিদের্শনা থাকলেও ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান পুর্বালী টের্ডাস নিম্নমানের ইট দিয়ে কাজ করছেন। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও উপজেলা প্রকৌশলী সড়কের ব্রীক সলিং কাজে ব্যবহার করা নিম্নমানের ইট তুলে নিয়ে ১নং ইট দিয়ে সলিং করার নির্দেশ দেয়।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে উপজেলা নিবাহী অফিসার জোনায়েদ কবির সোহাগ বলেন, সড়কের ব্রীক সলিং এর কাজে নিম্নমানের ইট ব্যবহার করার ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হলে আমি, উপজেলা প্রকৌশলী আবুল কালাম ও হলদিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলামকে নিয়ে সড়কটি পরিদর্শন করি। ব্যবহার করা নিম্নমানের ইট তুলে নিয়ে ১নং ইট দিয়ে সড়কের ব্রীক সলিং করার জন্য ঠিকাদার রুনু ভট্টচার্যকে নির্দেশ প্রদান করি।

এ ব্যাপারে রাউজান উপজেলা প্রকৌশলী আবুল কালাম বলেন, সড়কের ব্রীক সলিং কাজে নিম্নমানের ইট ব্যবহার করা হয়েছে। নিম্নমানের ইট তুলে নিয়ে ১নং ইট দিয়ে কাজ সম্পন্ন করার জন্য ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের কাজ পরিচালনাকারী রুনু ভট্টচার্যকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। নির্দেশনা অমান্য করলে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।